লুডু : জীবনভর খেলছি যে খেলা

লুডু : জীবনভর খেলছি যে খেলা

‘আরে ও বাবুজি কিসমাত কি হাওয়া কাভি গরম ,কাভি নরম , আরে ও বেটাজি জিনে কা মাজা কাভি গরম কাভি নরম, আরে ও বাবুজি ,খিচড়ি টা মাজা খাবি গরম কাভি নরম, আরে ও বেটাজি , জীবন টা নেশা কাভি গরম কাভি গরম, নরম গরম নরম গরম,’

মাত্রই দেখে শেষে করলাম আলোচিত পরিচালক অনুরাগ বসুর বহু কাঙ্ক্ষিত ফিল্ম লুডু। অনুরাগের মুভি মানেইতো তীব্র আবেগের জলোচ্ছাস, মানব-মানবীর প্রেম-ভালোবাসার আদিম অবাধ্য বুনো উচ্ছ্বাস। তাই তর সইছিল না মুভিটি দেখার জন্য। অপেক্ষা করছিলাম নেটফ্লিক্সে কবে দেখতে পাব ছবিটি।
তো কথা না বাড়িয়ে চলে আসি আসল প্রসংগে।

লুডুতো কমবেশি সবাই আমরা খেলেছি। আমাদের জীবনটা লুডুর সেই ছককাটা ঘরের মতোই। আর আমরা সেই লাল নীল গুটির মতো খেলে যাচ্ছি। আমরা নিজের ইচ্ছায় খেলছি, না কেউ আমাকে নিয়ে খেলছে সে জিজ্ঞাসা আমার বহুদিনের।

লুডুর মতো আমাদের জীবনেওতো ছয়/চার এর জন্য অবিরাম ছুটে চলা, জেতার জন্য সংঘাত- প্রতিঘাত। ছবির গল্পের সাথে তাই জীবন আর লুডু খেলা- এই তিন মিলেমিশে একাকার হয়ে যায়। সে হিসাবে নামকরণে কোনো ভুল নেই।

লুডু খেলার মতই এই ছবিতে চারটা ভিন্ন ভিন্ন গল্প আছে, ভিন্ন সেই গল্পের জীবনের আবার নিজস্ব রঙও আছে। লুডু খেলায় যেমন না চাইলেও এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রতিদ্বন্দ্বীর সামনে দিয়ে যেতে হয় , জড়িয়ে যেতে হয় তুমুল সংঘাত-উত্তেজনায়। তেমনি মুভিটিতেও প্রতিটি গল্প স্বতন্ত্র হলেও প্রত্যেকের সাথে কোনো না কোনো ভাবে জড়িয়ে যাচ্ছে, মুখোমুখি হচ্ছে, দ্বন্দ্ব তৈরি হচ্ছে।

তো এ চার গল্পের সাথে অন্য আরেকটি গল্প এসে জুড়ে যায়, আর এই পাঁচ নাম্বার গল্পটিকেই অনুরাগ বসু সত্যিকারের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করেছেন। ঘুরে ফিরে এই পাঁচটি গল্পেরই দুটি ব্যাপারে সাযুজ্য রয়েছে- প্রেম আর টাকা।

আমাদের বাস্তব জীবনেওতো দেখছি অর্থ আর টাকার জন্য হাহাকার। আর যেখানে টাকা আর প্রেম থাকবে সেখানে অবধারিতভাবে আরো একটা বিষয় জুটে- সেটি হলো অপরাধ। আর যেখানে অপরাধ সেখানেই উত্তেজনা। তাই মুভিটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দর্শক টেনে রাখে গল্পের নিজস্ব শক্তিতে।

লেখক : আয়েশা হ্যাপী।

এখানে মন্তব্য করুন :