রুপচর্চায় টমেটোর ব্যবহার

রুপচর্চায় টমেটোর ব্যবহার

এখনতো টমেটোর মওসুম। বাজারে অন্যান্য সবজির সঙ্গে প্রচুর পরিমাণে দেখা যায় টমেটো। পাকা টসটসে লাল টমেটো রান্না করে, সালাদে অথব জেলি করে খাওয়ার এখনই ভালো সময়।

এই টমেটোর গুণাগুণের কোনো শেষ নেই। এর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যেমন অনেক, তেমনি এটি পারে সুন্দর, সতেজ ও মসৃণ ত্বক এনে দিতে।

টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে রয়েছে আমিষ, ক্যালসিয়াম ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি।
টমেটোতে লাইকোপেন নামে একটি উপাদান রয়েছে যা ফুসফুস, পাকস্থলী, অগ্নাশয়ের রোগ এমনকি ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে।

এখনতো ঘরে ঘরে নারীদের মধ্যে স্তন ক্যান্সার আতঙ্ক বিরাজ করছে। সুস্বাদু এ সবজি স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকিও হ্রাস করে।

নিয়মিত টমেটো খেলে উচ্চ রক্তচাপ কমে আসে। যারা সর্দি-কাশিতে ভোগেন, নিয়মিত টমেটো খেলে চিরতরে মুক্তি পেতে পারেন সর্দি-কাশি থেকে।
শীতকালীন এ সবজিটি এখন দামেও সস্তা। খাদ্য হিসেবে ব্যবহারের পাশাপাশি চাইলে একে আমরা রূপচর্চায় ব্যবহার করতে পারি ।

ছবি : স্টাইলএনরিচ


ত্বকের সংক্রমণ রোধ করে


টমেটোর এসিডিটি ত্বকের সংক্রমণ রোধে সাহায্য করে। এটি ব্রণ পরিষ্কার করে। টমেটোতে থাকে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি, ই ও কে । যাদের মুখে কম ব্রণ তারা একটা টমেটো কেটে অর্ধেকটা গালে ঘষতে পারেন।

আর যাদের বেশি ব্রণ তারা একটি টমেটোকে মুখে মেখে এক ঘন্টা রাখুন। পরে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন সেই টমেটো। তারপর মুখে মশ্চায়ারাইজার ব্যবহার করুন। নিয়মিত এভাবে ব্যবহার করলে আপনার ব্রণগুলো খুবদ্রুত শুকিয়ে যাবে।

ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করে

কারো ত্বক যদি হয় তৈলাক্ত, তবে সে তেলতেলে ভাব দূর করার জন্য আপনি ব্যবহার করতে পারেন টমেটো। যেটা আপনাকে করতে হবে: একটা টমেটো নিন, তারপর সেটি ভালো করে চটকে যোগ করুণ শসার রস। চাইলে শশাটা ব্লেন্ড করে নিতে পারেন। টমেটোতে থাকা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ত্বকের নানা রকম ক্ষতিকর র‌্যাডিকেলস দূর করে। ত্বক করে তোলে কোমল ও স্বাস্থ্যকর।

লোমকূপ স্বাভাবিক রাখে

আপনার লোমকূপ খুব বড় হয়ে গেলে এর মধ্য দিয়ে খুব সহজেই ময়লা ও জীবাণু প্রবেশ করতে পারে। দেখা দিতে পারে ব্রণ এবং ক্রমাগত ব্রণ উঠলে আপনি বিব্রত বোধ করেন। মানুষজনের সামনে যেতে অনেকে লজ্জা পান।
সেক্ষেত্রে ১ টেবিল চামচ টমেটোর রস নিন, তার সাথে জুড়ে দিন দুই চার ফোঁটা লেবুর রস তারপর একটু তুলো নিয়ে মুখে আস্তে আস্তে ঘষতে থাকুন। দশ থেকে পনের মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত যদি আপনি এভাবে ব্যবহার করতে থাকেন, তাহলে দেখবেন যে লোকমকূপগুলো ধীরে ধীরে সংকুচিত হয়ে আসছে।

মিশ্র ত্বকের যত্নে

মিশ্র ত্বক যাদের তারা টমেটো ও অ্যাভোকাডো মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। টমেটো অ্যাসট্রিনজেন্ট হিসেবে কাজ করে। অ্যাভোকাডো এক ধরনের এন্টিসেপটিক, এটি ত্বককে আদ্র রাখে। এগুলোকে একত্রে মিশিয়ে আধাঘন্টা মুখে রাখুন তারপর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ছবি : বিউটিফুলডটইন


রোদে পোড়া থেকে বাঁচতে

গরমে বাইরে থেকে আসলে সূর্যের গনগনে রোদে পুড়ে যেতে পারে ত্বক। সে ক্ষেত্রে অর্ধেকটা টমেটোর সাথে নিন ২ টেবিল চামচ টক দই । তারপর যেসব স্থানে রোদ লেগেছে সেসব স্থানে মাখুন। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিনের ব্যবহারে দাগ দূর করার পাশাপাশি ত্বককে আরো উজ্জ্বল করবে। সে ক্ষেত্রে সাথে মধু যোগ করতে পারেন। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।


ক্লিনজার বানাতে

টমেটো দিয়ে চাইলে ঘরে ক্লিনজার বানাতে পারেন, সেজন্য একই পরিমাণ টমেটোর রস ও দুধ নিয়ে একটি পাত্রে ভরে ফ্রিজে রাখুন। তারপর প্রতিদিন ব্যবহার করুন। এছাড়া টমেটোর রস ৩ চা চামচ, মধু ১ চা চামচ, গ্লিসারিন ২ ফোঁটা ও কয়েক ফোঁটা লেবুর রস নিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে মুখে লাগান। এরপর দুই থেকে তিন মিনিট ম্যাসাজ করে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মরা চামড়া তুলতে


একটা টমেটো কুচি করে কাটুন। এবার তার ওপরে চা-চামচের পাঁচ ভাগের একভাগ পরিমাণ চিনি ছিটিয়ে দিন। এবার এই টমেটো আপনার মুখের ত্বকে ধীরে ধীরে ঘষতে থাকুন। মনে রাখতে হবে, ঘষার সময়ে সাবধানে ঘষতে হবে যাতে বেশি জোরে না ঘষা লাগে। মুখের ত্বক স্পর্শকাতর, বেশি জোরে ঘষলে র‌্যাশ উঠে মুখ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

ডার্ক সার্কেল দূর করে


ডার্ক সার্কেল ও বয়সের ছাপজনিত রিঙ্কেল দূর করতে টমেটো বেশ কার্যকরী। একটি টমেটোর রস নিয়ে তার সাথে সমপরিমাণ লেবুর রস মেশান। মিশ্রণটি চোখের চারপাশে ও রিঙ্কেলের ওপর লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা অপেক্ষা করে ফেসওয়াস দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ডার্ক সার্কেল ও রিঙ্কেলের সমস্যা দূর হবে।

এছাড়াও চুল ও দাঁতের জন্য এই সবজিটি বেশ উপকারি। যাদের মাথায় খুশকি রয়েছে তারা টমেটো রসের সঙ্গে পানি মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন দেখবেন উধাও।

তথ‌্যসূত্র : স্টাইলএনরিচ, বিউটিফুলডটইন।

এখানে মন্তব্য করুন :