দাঁত আর পোকার গল্প

দাঁত আর পোকার গল্প

একদেশে ছিল একটা শহর। শহরটার নাম ছিল ঢাকা। সেই শহরে ছিল ছোট্ট একটা মেয়ে। তার নাম ছিল ইনি আর সে ছিল মহাদুষ্টু ।

প্রতিদিন সকালবেলা সে ঘুম থেকে উঠেই শুরু করতো বায়না। কোনদিন তার বায়না-স্কুলে যাবে না, কোনদিন সে সকালে উঠেই চকলেট খাবে, কোনদিন সে গা ধোবে না , কোনদিন সে দাঁতই মাজবে না- এমন আরো কত কি!

একদিন সকালবেলা উঠে ইনি বললো, ‘মা, আমি আজকে দাব্রাশ করব না। ‘ দাব্রাশ মানে কি জানো? দাব্রাশ মানে হলো-দাঁত ব্রাশ। মা তো তাকে অনেক বোঝালো-কিন্তু সে কি আর কথা শোনার লোক?

 সে দাব্রাশ করবে না -তো করবেইনা! তো মা আর কি করবে? মা খুব মন খারাপ করে বসে থাকলো আর ভাবতে লাগলো -কি করে ইনিকে সত্যি কথাটা বোঝানো যায়, যে দাঁত ঠিকমত ব্রাশ না করলে, দাঁতগুলো সব নষ্ট হয়ে যায় আর ব্যথা হয়ে যায়।

তো মা যখন খুব করে একথা ভাবছে, ওমনি ইনি চিৎকার করে বলে উঠলো – মা, দেখো। দেখো! আমার দাঁতের ভেতরে কি যেন কালো কালো।

মা গিয়ে দ্যাখে কি- ইনি আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে, হাঁ করে কি যেন দেখছে।

ইনি তখন বললো- মা, দেখো-একটা কালো পোকা গান গাইছে আমার দাঁতের ভেতর।

 মা বললো- কি গান গাইছে পোকাটা?

 মা দেখলো, পোকাটা গাইছে-

 ‘ইনিয়ানা সরকার,

দাঁতজুড়ে পোকা তার

 ব্রাশ তো সে করেনি,

 জীবাণুও মরেনি।’

‘হইহই রইরই

মজা করে রয়ে যাই

আমরা কালো পোকার দল

বাড়াবো মোদের শক্তি বল।’

‘আয় সব, পোকা ভাই

ইনির দাঁতে ব্যথা বানাই।’

এই গান শুনে ইনি তো ভয়ের চোটে কান্না জুড়ে দিলো। আর মাকে বললো, পোকাগুলোকে তাড়াতাড়ি তাড়িয়ে দাও,মা। আমি ভয় পাই।

মা তখন করলো কি জানো? একটা সুন্দর বেবি ব্রাশে লাল টুকটুকে একটুখানি পেস্ট লাগিয়ে ইনিকে সুন্দর করে উপর নিচে দাঁত ব্রাশ করে দিলো।

পেস্ট তো এসেই সব পোকা জীবাণুগুলোকে ধুপধাপ, ধামধাম বেধড়ক পিটুনি দিতে লাগলো আর পোকাগুলো তখন ভয়ে চিৎকার করে উঠলো

‘লালপেস্ট, লালপেস্ট

পায়ে ওগো পড়ি ভাই

 কোনখানে পালাবো যে

ঠিকানাটা জানা নাই!’

এই কথা বলতে বলতে সবগুলো পোকা পড়িমরি করে দৌড়ে পালালো। আর ইনি কুলি করে করে সবগুলোকে পানির ভেতর ফেলে দিলো।

এরপর মা একটু কুসুম গরম পানিতে লবণ দিয়ে ইনিকে বললো,

‘এই নাও, কুলি করো

করো গড়গড়া

লবণ পানিতে বশ

ব‌্যাকটেরিয়া’

লবণ পানিতে গার্গল করে ইনির খুব আরাম হলো।

একটু পর আয়নার সামনে গিয়ে ইনি দেখে,  কি সুন্দর ঝকঝক করছে সবগুলো দাঁত!

আর কোথাও একটা কালো পোকা নাই!

তখন থেকে ইনিটা ভালো হয়ে গেলো। আর সবাইকে গান গেয়ে শোনাতে লাগলো –

‘পোকা ভাই, পোকা ভাই

আর এসো না

দাঁত ব্রাশ করি আমি

ভুলে যেও না।’

‘দাঁত ব্রাশ করে যারা

সকাল আর রাতে

পোকা কোনো আসে না তো

 তাদের কারো দাঁতে।’

তারপর? তারপর আর কি? মাও খুশী। ইনিও খুশী। সবাই খুশী!

লেখক : কাজী তাহমিনা, সিনিয়র লেকচারার, ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটি।

এখানে মন্তব্য করুন :