জাবির সাংবাদিকতা বিভাগে ব্যতিক্রমী দেয়ালচিত্র

জাবির সাংবাদিকতা বিভাগে ব্যতিক্রমী দেয়ালচিত্র

 নতুন রূপে, নতুন রঙে সেজেছে। বর্ষবরণ, নবান্ন উৎসবে রং তুলির আঁচড়ে বাহারি রঙের আলপনা, দেয়াল চিত্র ও কারুকাজ করে বেশ  জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

এবার বিভাগের সৌন্দর্যবর্ধনে দেয়ালে দেয়ালে বাহারি রঙের দেয়াল চিত্র অঙ্কন করা হয়েছে। যা বিভাগের সৌন্দর্যকে শতগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে। নতুন কলা ভবনের তৃতীয় তলা থেকে বিভাগে ওঠার সিঁড়ির দেয়াল গুলো বিভিন্ন রং তুলির আঁচড়ে ছেয়ে গেছে। সাংবাদিকতায় সম্পৃক্ত বিভিন্ন ধরনের ডিভাইসগুলোকেই রং তুলির আঁচড়ে বিভাগের দেয়াল গুলোতে অঙ্কন করা হয়েছে।লাল ইটের দেয়াল গুলোতে যেন জীবন্ত প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠেছে।

জার্নালিজম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের সাবেক সভাপতি উজ্জ্বল কুমার মন্ডল বলেন,আমরা আমাদের বিভাগ ও বিভাগের দেয়ালগুলোতে একাডেমিক বিষয়গুলোই চিত্রকর্মের মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেছি। আমরা মূলত সাংবাদিকতার সাথে আধুনিক প্রযুক্তির যে বিবর্তন সেই বিষয়গুলোকেই বিভাগের দেয়ালে দেয়ালে রং তুলির আঁচড়ে প্রকাশ করেছি। এতে করে বিভাগের সকল সদস্য যেমন দেখতে পাবে, শিখতে পারবে সেই সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থী এমনকি পর্যটকরাও আমাদের বিভাগ সম্পর্কে জানতে পারবে।

তিনি আরো বলেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম আকর্ষণ হলো এর অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।যে সৌন্দর্যকেও রং তুলির আঁচড়ে দেয়ালে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।এই বাহারি রঙের দেয়াল চিত্রগুলো দেখে একদিকে শিক্ষার্থীরা যেমন শিখবে সেই সাথে নিজেদেরকে নান্দনিকতার চেতনায় উজ্জীবিত করতে পারবে। এছাড়াও এই চিত্র কর্ম বা পেইন্টিং দেখে শুধুমাত্র বিভাগের শিক্ষার্থীরাই শিখবে না বরং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীরা অনেক কিছু শিখতে পারবে, জানতে পারবে। নতুন নতুন ধারনার উন্মেষ ঘটবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে। আমরা যখন আমাদের বিভাগে সিঁড়ি দিয়ে উঠতাম তখন চারদিকের দেয়াল গুলো ফাঁকা ফাঁকা লাগতো।আর তাই দেয়াল গুলোকে পরিপূর্ণ করতে এবং বিভাগের নান্দনিক সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে আমরা এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

বিভাগের সৌন্দর্যবর্ধনে দেয়াল চিত্র কর্ম সম্পাদন সম্পর্কে জার্নালিজম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের সভাপতি শেখ আদনান ফাহাদ বলেন, পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন ও সুন্দর থাকলে শিক্ষার্থীরাও আনন্দ পাবে, তাদের আত্মবিশ্বাস বাড়বে,এই বিশ্বাস থেকে বিভাগের একাডেমিক কমিটির অনুমতি নিয়ে সবার সহযোগিতায় এই সৌন্দর্য বর্ধন করা হয়েছে। আমাদের সাধ আছে, সাধ্য নেই। এটা চলমান প্রক্রিয়া। শিক্ষার্থীদের কল্যান নিশ্চিত কল্পে সভাপতি হিসেবে আমার প্রয়াশ অব্যাহত থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষক-শিক্ষার্থীর কাছে বিভাগগুলো শুধুমাত্র একটি বিভাগ নয়, একেকটি পরিবার। আমাদের বিভাগটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন কলা ভবনের চতুর্থ তলায় অবস্থিত। এখান থেকেই  চোখে পড়ে আমাদের বিশ্ববিদ‌্যালয়ের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। হয়তো এই সৌন্দর্যবোধ হৃদয়ে গেথে গেছে ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে।

সাংবাদিকতায় সাফল্যের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপনের পাশাপাশি এই বিভাগের শিক্ষার্থীরা অন্য সব ক্ষেত্রেই নিজেদের যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় দেয়ালচিত্র কর্মেও রেখে গেছে তারা প্রতিভার স্বাক্ষর।

ইমন ইসলাম, লেখক: শিক্ষার্থী, সাংবাদিকতা ও গনমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়

এখানে মন্তব্য করুন :